প্রশ্ন : আসসালামু আলাইকুম। আমাদের সমাজে নবী-রাসূল বা ওলিদের ব্যাপারে কিছু ঘটনা প্রচলিত আছে। ব্যক্তিগতভাবে আমার কাছে এই সব ঘটনা অতিরঞ্জিত এবং বানোয়াট মনে হয়। বিভিন্ন মাহফিলেও বক্তাদেরকে ঘটনাগুলি বলতে শোনা যায়। নিচে প্রশ্নগুলি দেওয়া হল। ১. মুসা আলাইহিস সালাম এর রূহ কবজ করতে এসে আজরাঈল (আঃ) তাকে সালাম না দেওয়াতে মুসা আলাইহিস সালাম এক থাপ্পড়ে আজরাঈল (আঃ) এর কান বয়রা করে ফেলেছিল। ২. ইমাম আবু হানীফা (রহঃ) এক অযু দিয়ে চল্লিশ বছর নামায পড়েছেন। এবং তিনি মহান আল্লাহ তায়ালাকে একশ কত বার নাকি স্বপ্নেও দেখেছেন। ৩. হযরত আব্দুল কাদের জিলানী (রহঃ) কবরের মধ্যে নাকি মুনকার-নাকির ফেরেশতাদের আটকে রেখেছিল। কারণ, তারা তাকে প্রশ্ন করার সময় সালাম দিতে ভুলে গেয়েছিল। ৪. নবী আইয়ুব আলাইহিস সালাম এর শরীরে পোকা ধরেছিল। তাই তাকে লোকলয় ছেড়ে জঙ্গলে গিয়ে থাকতে হয়েছিল। এ সময় তার স্ত্রী নিজের চুল বিক্রি করে তার জন্য খাবার যোগাড় করেছেন। ৫. চিংড়ি মাছ হল হযরত আইয়ুব আলাইহিস সালাম এর গায়ের পোকা। তাই তা খাওয়া মাকরূহ। উপরের ঘটনাগুলি কতটুকু সত্য? জানালে উপকৃত হই। এক সাথে বেশি প্রশ্ন করার জন্য দুঃখিত।

উত্তর :

ওয়া আলাইকুমুস সালাম

১। ভিত্তিহীন। তবে ঘটনাটি হাদীস শরীফে এভাবে আছে, মালাকুল মাউত মূসা আলাইহিস সালাম এর নিকট জান কবজের জন্য এলে তিনি তাকে থাপ্পড় মারেন। ফলে তার চোখ বেরিয়ে যায়। এরপর আল্লাহ তাআলা আবার তা ঠিক করে দেন (সংক্ষিপ্ত)।–সহীহুল বুখারী, হাদীস নং ১৩৩৯; সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ৬২৯৭

২। এক অযু দিয়ে চল্লিশ বছর নামায পড়ার বিষয়টিও ভিত্তিহীন। তবে কিছু সুত্রে বর্ণিত আছে, তিনি ইশার উযূ দ্বারা চল্লিশ বছর ফজর পড়েছেন।-আল্লামা মিজ্জী, তাহযীবুল কামাল ২৯/৪৩৪ (শামেলা); তারীখে বাগদাদ ১৩/৩৫৪

আর স্বপ্নে আল্লাহ তাআলাকে দেখার বিষয়ে আল্লামা আব্দুল মালেক সাহেব মাসিক আলকাওসারে একটি প্রশ্নের উত্তরে যা লিখেছেন হুবহু তাই তুলে দিলাম-

(প্রশ্নঃ ইমাম আবু হানিফা রাহ. আল্লাহকে স্বপ্নে দেখেছেন বলে শোনা যায়। কথাটা কতটুকু দলীল সম্বলিত? আর দুনিয়াতে কি কোনো মানুষ আল্লাহকে দেখার যোগ্যতা রাখে

উত্তরঃ এধরনের কথা কোনো কোনো কিতাবে উল্লেখ রয়েছে। ইমাম আবূ হানীফা রাহ. থেকে এ কথা সহীহ সনদে প্রমাণতি কি না তা আমার জানা নেই। যদি সহীহ সনদে প্রমাণতি থাকে তবে তো সেটি খাব ও স্বপ্নমাত্র। ঘুমন্ত অবস্থায় স্বপ্নে কোনো কিছু দর্শন করা আর জাগ্রত অবস্থায় বাস্তবে কিছু দর্শন করা সম্পূর্ণ আলাদা বিষয়। কারণ স্বপ্নে মানুষ যা দেখে, শুনে কিংবা অনুভব করে তা মূলত সে পঞ্চেন্দ্রিয় দ্বারা করে না। হাদীসের ভাষায় যে স্বপ্নগুলো الرؤيا الصالحة  ও  الرؤيا الصادقة(ভালো ও সত্য স্বপ্ন) সেগুলোতেও দৃষ্ট ও শ্রুত বিষয়াবলী সাধারণত স্থুল হাকীকত ও প্রকৃত বিষয় হয় না; বরং উদ্দীষ্ট বিষয়ের সূ² কোনো মিছাল ও দৃষ্টান্ত হয়ে থাকে, এ কারণে ভালো স্বপ্নও তা‘বীর ও তা‘বীল সাপেক্ষ।

এছাড়া আম্বিয়ায়ে কেরাম আলাইহিমুস সালাম ছাড়া অন্যদের কোনো স্বপ্ন তো শরীয়ত ও আকলের দৃষ্টিতে হুজ্জত নয় একথা সর্বজন স্বীকৃত।

সুতরাং কেউ স্বপ্নে আল্লাহ তাআলার দর্শন লাভ করে থাকলে সেটি যে প্রকৃত দর্শন নয় এবং চর্মচক্ষু দ্বারা দর্শন নয় তা বলার অপেক্ষা রাখে না। এ ধরনের দর্শন মূলত উদাহরণ ও দৃষ্টান্ত স্বরূপ কোনো ভালো গুণ বা অবস্থার দর্শন। স্বপ্নদ্রষ্টার অবস্থাভেদে সেই উদাহরণ ও দৃষ্টান্তের বিভিন্নতা হতে পারে। অন্যথায় কুরআনুল কারীমের অকাট্য ঘোষণা হল,

لَيْسَ كَمِثْلِهِ شَيْ وَهُوَ السَّمِيعُ الْبَصِيرُ

(তরজমা) কোনও জিনিস নয় তার অনুরূপ। তিনিই সব কথা শোনেন ও সবকিছু দেখেন। -সূরা শূরা, আয়াত ১১

আর পরীক্ষার ইহজগতে কেউ আল্লাহ তায়ালাকে দেখবে না- একথা কুরআন ও হাদীস দ্বারা প্রমাণিত। কুরআনে কারীমে ইরশাদ হয়েছে-

لَا تُدْرِكُهُ الْأَبْصَارُ وَهُوَ يُدْرِكُ الْأَبْصَارَ

এবং হাদীস শরীফে ইরশাদ হয়েছে

تعلموا أنه لن يرى أحد منكم ربه عز وجل حتى يموت

(সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৯৩০) তবে আল্লাহর মুমিন ও নেক বান্দাগণ আখেরাতে জান্নাতে আল্লাহ তাআলার দিদার লাভে ধন্য হবে- সে কথা কুরআন-হাদীস দ্বারা অকাট্যভাবে প্রমাণীত।

(اللهم اجعلنا منهم وأسعدنا به)

বাকী থাকল রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের মেরাজের রজনীতে আল্লাহর দিদার লাভের ঘটনা। তো সেটা এই জড় জগতে ঘটেনি, বরং উর্ধ্ব জগতে ঘটেছে। এছাড়া এটি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের একক বৈশিষ্ট্য। এ ঘটনার ভিন্ন ব্যাখ্যাও রয়েছে। বিস্তারিত জানার জন্য, শরহে হাদীসের কিতাব দেখা যেতে পারে।

স্বপ্নে আল্লাহ তাআলার দর্শন লাভের ব্যাখ্যা প্রসঙ্গে শায়খ আব্দুল্লাহ ইবনু সিদ্দিক আল গুমারী রাহ. (মৃত্যু ১৪১২ হি.) যথার্থই বলেছেন-

“يستدل بعض غلاة أهل السنة بحديث رؤيا الله في المنام على إمكان رؤيته تعالى في اليقظة، وهو خطأ، لأن الله لا يرى في المنام حقيقة، وإنما المرئي مثال يتعرف الله به إلى عبده ويريه ما يريد أن يبينه له من بشارة أو انذار، والمثال غير المثل.” انتهى من كتاب “مدى حجية الرؤيا عند الأصوليين” للدكتور علي جمعة ص৫৪ نقلا عن كتاب الرؤيا في القرآن والسنة للشيخ عبد الله الغماري ص৬৭.

এ বিষয়ে আরো জানার জন্য দেখা যেতে পারে- আরিযাতুল আহওয়াযী-শরহু সুনানিত তিরমিযী,ইবনুল আরাবী ১২/১১০-১১১; মিরকাত শরহুল মিশকাত, ২/২০৯; মজমূউল ফাতাওয়া, শায়খুল ইসলাম ইবনু তায়মিয়া ৫/২৫১-২৫৫, ৩/৩৮৯-৩৯২; আত তাকাশশুফ, হযরত থানবী পৃ ২৮৭;বাওয়াদিরুন নাওয়াদির, হযরত থানবী ৪১১-৪১৬

তা‘তীরুল আনাম ফি তাফসীরলি মানাম, আব্দুল গণী নাবলূসী)

সূত্রঃ মাসিক আলকাওসার, আগস্ট ২০১৫

৩+৪+৫। সবগুলোই ভিত্তিহীন।

690,052 total views, 921 views today