প্রশ্ন : আসসালামু আলাইকুম… আমি একজন অত্যন্ত বিপদ্গ্রস্ত নারী। দয়া করে আমার প্রশ্নের উত্তর দিয়ে সাহায্য করবেন। আমি যখন কম বয়সী, আমার একজনের সাথে গভীরভাবে পরিচয় হয়। সে আমাকে বিবাহের প্রস্তাব দেয় এবং আমাকে আল্লাহ্‌ ও রাসূলের কথা বলে ইমোশনালি ব্ল্যাকমেইলও করে। বলে, চলো আমরা বিয়ে করে ফেলি। পরে বাসায় জানিয়ে বিয়ের ব্যবস্থা করবো… এরপর কাজি অফিসে আমাদের বিয়ে হয়, যেখানে রেজিস্ট্রেশন করা হয় এবং কাবিন নামার কপিতে ঐ লোকের নাম সম্পূর্ণ ভুল আসে। কিন্তু সে বলে, বিয়ে সহীহ। এরপর আমার সাথে ঘনিষ্ঠ হয়। বিয়ের পর থেকেই আমাকে ভয়াবহ মানসিক নির্যাতন করে শুধু এই কারণে যে আমি দেখতে অসুন্দর… বিয়ের ২ বছর হওয়ার কিছুদিন পরে সে আমাকে মৌখিকভাবে তিন তালাক দেয়। এবং পরদিন এসে ক্ষমা চেয়ে আবার ঘনিষ্ঠ হয়। এরপর সে গায়েব হয়ে যায়- বিয়ে করে অন্য মেয়েকে। এখন তাই সে সুখেই আছে। আমি এই ব্যক্তির কাছে ফেরত যেতে চাই না। কিন্তু আদৌ জানিনা, আমার কি ঐ ব্যক্তির সাথে বিবাহ শুদ্ধ হয়েছে? বিবাহ শুদ্ধ হলেও কি তালাক শুদ্ধ হয়েছে? তালাকের পর যে ঐ ব্যক্তি আমাকে মিথ্যা বুঝিয়ে আবার ঘনিষ্ঠ হয়েছিলো, তাতে আমার দ্বারা কি ব্যভিচার হয়েছে? তাহলে আমি কি করতে পারি? আলেম বলেছেন, যেহেতু আমার অভিভাবকরা কেউ এই বিয়ের ব্যাপারে জানতেন না, তাই বিবাহই শুদ্ধ হয়নি এবং তালাক হওয়ার তো কথাই নেই! এখন আমি কি করবো? ঐ কাবিননামা পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে। আমার কাছে কোনো প্রমাণ নেই এবং আমি দেনমোহর বাবদ কয়েক লক্ষ টাকা- তাও পাইনি। এদিকে বাসায় সবাই বিয়ে দিতে চাচ্ছে, শুধুমাত্র এই সমস্যার জন্য আমি বিয়েতে মত দিচ্ছি না। আমি এই ঘটনা কি আমার ভবিষ্যৎ স্বামীর কাছে বিয়ের আগেই খুলে বলব? না বললে কি উনাকে ধোঁকা দেওয়া হবে? আলিম সাহেব, আমি যে কাউকে ধোঁকা দিতে চাই না। আবার মনেও জোর কম। বিয়েটা ৮ বছর আগের ঘটনা, আর তালাক হয়েছে ৬ বছর… এই পুরো সময় ধরে অত্যন্ত দুঃখ আর দুর্দশায় জীবন কাটাচ্ছি… প্রতি মুহূর্তে হতাশায় মৃত্যু কামনা করতাম এক সময়ে। এখন একটু স্থির হয়েছি। আমাকে একটু সঠিক পথ বলে দিন। আমার কি করা উচিৎ? জাযাকাল্লাহ।

উত্তর :

ওয়া আলাইকুমুস সালাম
প্রিয় দ্বীনী বোন, আপনার উত্তরটি দিতে বেশ বিলম্ব হওয়ায় আন্তরিকভাবে দুঃখিত।
প্রশ্নের বর্ণনা অনুযায়ী আপনার বর্তমানে বিবাহ বসতে শরয়ী দৃষ্টিকোণ থেকে কোন বাঁধা নেই। হতাশার কিছুই নেই। উক্ত ছেলেটি সম্ভবত আপনার বয়স কম হওয়ায় আপনার সরলতার সুযোগ নিয়েছিল। যা খুবই জঘন্যতম হয়েছে।
আর আপনার পূর্বোক্ত বিবাহ সহীহ হয়েছে কিনা এটা জানার জন্য উভয়ের পারিবারিক স্ট্যাটাস জানা প্রয়োজন। যদি ছেলে, মেয়ের পরিবারের কুফু (সমকক্ষ) না হয় (ইসলাম, বংশ, সম্পদ, পেশা, সন্মান ইত্যাদি দিক দিয়ে) এবং মেয়ের পিতামাতা নারাজ থাকে তবে সহীহ মত অনুযায়ী বিবাহ সংঘটিতই হয় না। তাই বিবাহ পরবর্তী জীবনের হুকুম সম্পর্কে উভয়ের পারিবারিক স্ট্যাটাস জানা ব্যতীত বলা যাচ্ছে না। তবে ঐ ব্যক্তি যেহেতু তিন তালাক দিয়েছিল তাই বিবাহ সহীহ হোক বা না হোক এখন নতুন করে বিবাহ করতে কোন অসুবিধা নেই। কিন্তু তিন তালাক দেওয়ার পরেও তাকে সুযোগ দেওয়ায় যিনা হয়েছে। এজন্য আপনি আল্লাহ তাআলার নিকট খালেছভাবে তাওবা করে নিবেন।
আর বিষয়টি যেহেতু আপনি ছাড়া আর কেউ জানে না তাই এখন আর কাউকে জানানোর প্রয়োজন নেই। নতুন করে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার ক্ষেত্রে আপনার স্বামীকে বিবাহের পূর্বে বা পরে কখনোই তা জানাবেন না। আর এটা কোন ধোঁকার মধ্যেও পড়বে না ইংশাআল্লাহ। কাজেই হতাশ না হয়ে অতীতের কথা ভুলে গিয়ে নতুন করে জীবন শুরু করুন। আল্লাহ তাআলা ইংশাআল্লাহ সাহায্য করবেন।- রদ্দুল মুহতার ৩/৫৯, ৮৪, ৯৪, ৮৯; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/২৯২; আল বাহরুর রায়েক ৩/১৯৪; ফাতাওয়া মাহমূদিয়া ১১/৬১৫,৬১৬; ফাতওয়ায়ে দারুল উলূম দেওবন্দ ৮/১৫৪

682,988 total views, 81 views today