প্রশ্ন : আসসালামু আলাইকুম। ২০১৫ সালের প্রথম দিকে পারিবারিক ভাবে একটা মেয়ের সাথে আমার কাবিন করে রাখা হয়। কাবিন করার ৪-৫ মাস পরে ইজাব কবুলের মাধ্যমে আমাদের বিয়ে হয়। ইজাব- কবুলের সময় আমার কিছু দেনমোহর বাকি ছিলো, বিয়ের অনুষ্ঠানে আমি এবং আমার স্ত্রী আলাদা ভাবে অনেক স্বর্ণালংকার উপহার হিসেবে পাই, আলাদা ভাবে। অতিথিদের কাছ হতে। আমার স্ত্রীর গুলো তার কাছেই থাকে এবং আমারগুলোও তাকে দিয়ে দেই দেনমোহর হিসেবে। আমার বাঁকি দেনমোহর এর চেয়ে যে স্বর্ণালংকার স্ত্রীকে দেই তার মূল্য অনেক বেশি ছিলো। বিয়ের কিছুদিন পরে ব্যবসায় লস এবং আমার মায়ের ক্যান্সারের কারনে আমাদের আর্থিক অবস্থা খুবই খারাপ হয়। তখন থেকে আমার শ্বশুর বাড়ির লোকজন আমার স্ত্রীকে চাপ দিতে থাকে, আমাকে ছেড়ে দেবার জন্য, আমার স্ত্রীকে ত্যাজ্য করার হুমকি দেয়, এবং আমার সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করে শ্বশুর বাড়ির লোকজন। তারপরও আমার স্ত্রী আমার কাছেই থাকে। আলহামদুলিল্লাহ, আমাদের দাম্পত্য জীবন ছিলো, খুবই ভালোবাসাময়। কিছুদিন আগে আমার স্ত্রী তার বাড়ি যায়। কয়েক দিন পর শুনতে পাই, আমার স্ত্রী আমাকে তালাক দিয়েছে, কাবিননামার ১৮ নং ধারার ক্ষমতাবলে। আমি তালাকের নোটিশ পাইনি বা সই করিনি। কাবিনের সময় (ইজাব,কবুলের ৪/৫ মাস আগে), ১৮ নং ধারা সম্পর্কে কাজী সাহেব আমাকে কিছু বলেনি। আমি পরে শুনেছি, আমার স্ত্রী বা সাক্ষীরাও এ বিষয়ে কিছু শোনেনি। সম্ভবত কাজী সাহেব, পরে এটি পূরণ করে। আমার এক আলেম বন্ধু আমাকে বলে “”কাবিন করার সময় তোমার স্ত্রীর তুমি স্বামী ছিলে না, তাই তোমার নিজেরই, স্ত্রীকে তালাক দেবার অধিকার ছিলো না, তুমি তখন (ইজাব কবুলের ৫ মাস আগে) এই অধিকার তাকে দিলেও কাজ হতো না, আর তুমিতো জানোই না (তালাকের ক্ষমতা দেবার কথা), তাই তালাক হয়নি।””এই কথা, আমার স্ত্রীকে বললে, সে বলে “এক মৌলভীর কাছে সে শুনেছে, তালাক হয়ে গেছে।” এখন আমার প্রশ্ন ১। আমাদের কি তালাক হয়েছে? ২। আমার দেনমোহর কি আদায় হয়েছে?

উত্তর :

ওয়া আলাইকুমুস সালাম
তানকীহ (প্রশ্ন স্পষ্টকরণ):
১। প্রশ্নের বর্ণনা অনুযায়ী আপনাদের বিবাহের ঈজাব কবূলের ৪/৫ মাস পূর্বে শুধু কাবিন লিখা হয়েছিল। ঐ সময় কোন ঈজাব কবূল হয়নি। বিষয়টি কি আসলেই এমন? এটি জানালেই আপনার প্রশ্নের উত্তর দেওয়া হবে ইংশাআল্লাহ।
২। আপনি বিবাহের পর কি কখনো স্ত্রীকে তালাক গ্রহনের ক্ষমতা দিয়েছিলেন?
তানকীহের জবাবঃ
১। জি, সত্য সত্যই ঈজাব কবুলের ৪-৫ মাস আগে কাবিন লেখা হয়েছিলো।
২। জি না হুজুর, আমার স্ত্রীকে আমি কখনো তালাক গ্রহণ করবার ক্ষমতা দেইনি।
মূল উত্তরঃ
১। প্রশ্নের বর্ণনা সত্য হলে (অর্থাৎ যখন কাবিন লিখা হয়েছিল তখন কোন ঈজাব কবূল হয়নি। বরং ঈজাব কবূল কাবিন লিখার ৪/৫ পরে হয়েছিল এবং পরবর্তীতে আপনি স্ত্রীকে কখনো তালাক গ্রহনের ক্ষমতা দেননি।) আপনার স্ত্রীর উপর কোন তালাক পতিত হয়নি। তিনি আপনার স্ত্রী বহাল আছেন। আর আপনি যেহেতু কখনো বিবাহের পরে তালাকের ক্ষমতা স্ত্রীকে দেননি তাই আপনার স্ত্রী কখনো নিজের উপর তালাক গ্রহন করতে পারবে না।–আদ্দুররুল মুখতার ৩/২৪২; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ৬/৩৯৬
২। হ্যাঁ, প্রশ্নের বর্ণনা অনুযায়ী দেনমোহর আদায় হয়ে গিয়েছে।