মাসআলাঃ কুরবানী শুধু নিজের উপর ওয়াজিব হয়। পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের (যেমন পিতা –মাতা,স্ত্রী ইত্যাদি )পক্ষ থেকে কারো উপর কুরবানী ওয়াজিব হয় না।

মাসআলাঃ কারো পক্ষ থেকে তার অনুমতি ব্যতীত ওয়াজিব কুরবানী আদায় করলে তা সহীহ হবে না। অবশ্য একই পরিবারভুক্ত কোন সদস্য অন্য সদস্যের পক্ষ থেকে তার জ্ঞাতসারে নিয়মিত কুরবানী করে আসলে তার কুরবানী হয়ে যাবে। তবে প্রকাশ্যে অনুমতি নেওয়া উত্তম।-আদ্দুররুল মুখতার ৬/৩১৫
মাসআলাঃ নাবালেগের পক্ষ থেকে অভিভাবকের উপর কুরবানী দেওয়া জরুরী নয়। বরং মুস্তাহাব । রদ্দুল মুহতার-৬/৩১৫
মাসআলাঃ মৃত ব্যক্তির পক্ষ থেকে ছাওয়াব পৌছানোর উদ্দেশ্যে কুরবানী করা জায়েয। মৃত ব্যক্তি ওসিয়ত না করে থাকলে তা নফল হিসাবে গন্য হবে। এ গোশত সবাই খেতে পারবে। আর যদি মৃত ব্যক্তি ওসিয়ত করে যায় তবে তার গোশত গরীব মিসকীনদের মাঝে ছদকাহ করা ওয়াজিব। -রদ্দুল মুহতার-৬/৩২৬
মাসআলাঃ জীবিতদের সাথে একটি পশুতে মৃত ব্যক্তিকে শরীক করা যায়।-প্রাগুক্ত
মাসআলাঃ সামর্থ থাকলে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর পক্ষ থেকে কুরবানী করা উত্তম। হযরত আলী (রা) রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর ওসিয়ত অনুযায়ী প্রতিবছর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর পক্ষ থেকে কুরবানী দিতেন।- তিরমিযী শরীফ ১/২৭৫
মাসআলাঃ মৃত ব্যক্তির ঈছালে ছাওয়ারের উদ্দেশ্যে যেমন তার পক্ষথেকে কুরবানী করা যায় তেমনিভাবে জীবিত ব্যক্তির পক্ষ থেকেও তার ঈসালে ছাওয়াবের উদ্দেশ্যে তার পক্ষ থেকে নফল কুরবারী করা যায়। এ কুরবানীর গোশত সবাই খেতে পারবে।

 550 total views,  1 views today