মাসআলাঃ কুবানীর পশু নিজে জবাই করা উত্তম। নিজে ভালভাবে জবাই করতে না পারলে অন্য কাউকে দিয়ে করাবে। সেক্ষেত্রে কুরবানীদাতা জবাই এর স্থানে উপস্তিত থাকবে। মহিলারা পর্দার ব্যঘাত হলে উপস্তিত হবে না। ফাতাওয়া হিন্দিয়া ৫/৩০০

মাসআলাঃ কুরবানীর নিয়ত শুধু মালিক কর্তৃক মনে মনে করাই যথেষ্ট । কিছু বলা জরুরী নয়। অনুরূপভাবে মালিক কর্তৃক নিয়ত করার পর জবাইকারীর নামের লিষ্ট পড়ারও কোন প্রয়োজন নেই।- আল ফিকহুল ইসলামী ৪/৩০০
মাসআলাঃ কুরবানীর পশুকে মাথা দক্ষিন দিকে দিয়ে কেবলা মুখি করে শুইয়ে দিবে। এটা সুন্নত। অতঃপর এদুআটি পড়া উত্তম-
{إِنِّي وَجَّهْتُ وَجْهِيَ لِلَّذِي فَطَرَ السَّمَاوَاتِ وَالْأَرْضَ حَنِيفاً وَمَا أَنَا مِنَ الْمُشْرِكِينَ. إِنَّ صَلاتِي وَنُسُكِي وَمَحْيَايَ وَمَمَاتِي لِلَّهِ رَبِّ الْعَالَمِينَ لا شَرِيكَ لَهُ وَبِذَلِكَ أُمِرْتُ وَأَنَا أَوَّلُ الْمُسْلِمِينَ
এর পর “বিসমিল্লাহি আল্লাহু আকবার ”বলে জবাই করবে। ইচ্ছাকৃতভাবে এটা তরক করলে কুরবানী সহীহ হবে না এবং এর গোশতও খাওয়া যাবে না। তবে ভুলে ছুটে গেলে অসুবিধা নেই।–জাওয়াহিরুল ফিকহ-১/৪৫০
মাসআলাঃ কখনও একাধিক ব্যক্তি মিলে জবাই করে। জবাইকারী সামান্য কিছু কাটার পরে কসাই বা অন্য কেউ বাকী জবাই সম্পন্ন করে। এক্ষেত্রে যে-ই জবাইতে শরীক হবে তাকে বিমমিল্লাহি আল্লাহু আকবার পড়ে জবাই করতে হবে। যদি কোন একজন ইচছাকৃতভাবে না পড়ে তবে কুরবানী সহীহ হবে না। এবং উক্ত পশু হালাল হবে না। -রদ্দুল মুহতার ৬/৩৩৪
মাসআলাঃ হলক্ব ও কন্ঠের মধ্যখানে জবাই করতে হবে। নতুবা পশুটি হালাল হবে না।
মাসআলাঃ ধারালো অস্ত্র দ্বারা জবাই করা উত্তম। -বাদায়েউস সানায়ে ৪/২২৩
মাসআলাঃ জবাইয়ের পর পশুর জান বের হবার পূর্বে চামড়া ছোলা,রগ কাটা,ছুরির আগা দিয়ে গলার হাড্ডিতে আঘাত করা বা অন্য কোন অঙ্গ কাটা মাকরূহ।- প্রাগুক্ত
মাসআলাঃ এক পশুর সামনে অন্য পশুকে জবাই করবে না ।

 1,087 total views,  1 views today