মাসআলাঃ যে পশু এত দূর্বল ও রুগ্ন যে তার জবাইয়ের স্থান পর্যন্ত হেটে যেতে পারে না তা দ্বারা কুরবানী করা জায়েয নয়।- ফাতাওয়া হিন্দিয়া ৫/২৯৭

মাসআলাঃ যে পশুর শিং একেবারে গোড়া থেকে ভেঙ্গে গেছে তা দ্বারা কুরবানী জায়েয নয়। তবে যদি অর্ধেক শিং বা কিছু শিং ফেটে বা ভেঙ্গে যায় অথবা শিং এখনো উঠেইনি সে পশু দ্বারা কুরানী সহীহ হবে।- রদ্দুল মুহতার ৬/৩২৪
মাসআলাঃ যে পশুর দুটি চোখই অন্ধ বা একটি চোখ পূরো অন্ধ বা একটি চোখের তিন ভাগের এক ভাগ বা আরো বেশি দৃষ্টিশক্তি নষ্ট হয়ে গিয়েছে সে পশু দ্বারা কুরবানী করা জায়েয নয়।- বাদায়েউস সানায়ে ৪/২১৪ ফাতাওয়া রহীমিয়া ১০/৪৮
মাসআলাঃ যে পশুর কোন দাঁত নেই বা এত বেশি দাঁত পড়ে গিয়েছে যে খাবার চিবিয়ে খেতে পারে না এমন পশু দ্বার কুরবানী করা জায়েয নয়। -ফাতাওয়া হিন্দিয়া ৫/২৯৮
মাসআলাঃ যে পশুর লেজ বা কোন একটি কানের এক তৃতীয়াংশ বা তদাপেক্ষা বেশি কেটে গেছে সে পশু দ্বারা কুরবানী করা জায়েয হবে না। তবে যে পশুর কান জন্ম থেকেই ছোট তার কুরবানী জায়েয। আর যে পশুর জন্মগতভাবে কান নেই তা দ্বারা কুরবানী জায়েয নয়।- ফাতাওয়া হিন্দিয়া ৫/২৯৭-২৯৮
মাসআলাঃ যে পশু তিন পায়ে ভর দিয়ে চলে,এক পা মাটিতে রাখতে পারে না বা এক পায়ে কোন ভর দিতে পারে না এমন পশু দ্বারা কুরবানী করা জায়েয নয়। তবে যদি খোড়া পা দিয়ে খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলতে পারে তবে তা দ্বারা কুরবানী করা জায়েয।- রদ্দুল মুহতার ৬/৩২৩,ফাতাওয়া হিন্দিয়া ৫/২৯৭
মাসআলাঃ কোন পশু যদি এমন শুষ্ক হয় যে ,তার হাড়ের মগজও শুকিয়ে গিয়েছে তবে তা দ্বারা কুরবানী জায়েয নয়। হাড়ের মগজ না শুকালে তা দ্বারা কুরবানী জায়েয।
মাসআলাঃ যে পশুর গায়ে দাদ বা চুলকানি রয়েছে তা দ্বারা কুরবানী জায়েয। তবে এর করনে যদি গোশতে পচন ধরে তাহলে তা দ্বারা কুরবানী জায়েয নয়।
মাসআলাঃ বন্ধ্যা পশু দ্বারা কুরবানী করা জয়েয।- রদ্দুল মুহতার-৬/৩২৫
মাসআলাঃ গর্ভবতী পশু দ্বারা কুরবানী করা জায়েয। জবাই করার পর বাচ্চা জীবিত পাওয়া গেলে সেটাও জবাই করতে হবে। তবে প্রসবের সময় নিকটবর্তী হলে সে পশু কুরবানী করা মাকরূহ। কাযীখান-৩/৩৫০
মাসআলাঃ খাশিকৃত ছাগল দ্বারা কুরবানী করা জায়েয বরং উত্তম।- ইলাউস সুনান-১৭/৪৫৩
মাসআলাঃ পাগল পশু দ্বারা কুরবানী করা জয়েয। তবে যদি তার পাগলামী এত বেশি হয় যে ঘাশ পানি দিলে খায় না বা মাঠে চরে না তাহলে তা দ্বারা কুরবানী জায়েয নয়। -বাদায়েউস সানায়ে ৪/২১৬
মাসআলাঃ কেউ কুরবানীর জন্য ভালো পশু ক্রয় করার পর তাতে এমন দোষ দেখতে পেল যার কারনে কুরবানী জায়েয হয় না। তবে ঐ পশু দ্বারা কুরবানী সহীহ হবে না। বরং ভিন্ন একটি পশু কুরবানী করতে হবে। তবে ক্রেতা যদি গরীব হয় তাহলে ঐ ত্রুটিযুক্ত পশু দ্বারাই কুরবানী করতে পারবে।- রদ্দুল মুহতার ৬/৩২৫
মাসআলাঃপশু জবাই করতে গিয়ে ক্রটিযুক্ত হয়ে পড়লে (যেমন ধরতে বা বাধতে বা শুয়াতে গিয়ে পা ভেঙ্গে গেল) তা দ্বারা কুরবানী করা যাবে।

 1,197 total views,  1 views today