প্রশ্ন : আসসালামু আলাইকুম ১. কোন আত্মীয় যদি মুসলমানীর জন্য দাওয়াত দেয় তাহলে যাওয়া যাবে? ২. মেয়ে পক্ষ (আত্মীয়) যদি বিয়ের দাওয়াত দেয় তাহলে কি যাওয়া যাবে? ৩. দাওয়াতে না গেলে যদি অত্মীয়তার সম্পর্ক নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা থাকে তবে কি যাওয়া যাবে ?

উত্তর :

ওয়া আলাইকুমুস সালাম
১। খতনা উপলক্ষে আত্মীয়-স্বজনকে দাওয়াতের আয়োজন করা সুন্নাত বা মুস্তাহাব নয়; বরং জায়েয মাত্র। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের যুগে খতনার উপলক্ষে কোন খাওয়া-দাওয়ার ব্যবস্থা করা হত না। হযরত উসমান ইবনে আবুল আছ (রাঃ) সম্পর্কে বর্ণিত আছে-

তাকে একদা খতনার একটি দাওয়াতে আমন্ত্রণ জানানো হয়। কিন্তু তিনি তাতে শরীক হতে অস্বীকৃতি জানান। তাঁকে এর কারণ জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম-এর যমানায় আমরা খতনা উপলক্ষে (কোথাও) যেতাম না এবং সে জন্য আমাদেরকে দাওয়াতও করা হত না।–মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং ১৭৯০৮

তবে সাহাবাদের কেউ কেউ বাচ্চাদের খতনার পর শুকরিয়া আদায় করত দাওয়াতের ব্যবস্থা করতেন।
তাবেয়ী নাফে (রহঃ) বলেন, আবদুল্লাহ ইবনে উমর (রাঃ) বাচ্চাদের খতনা উপলক্ষে খাবার খাওয়াতেন। -মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা, বর্ণনা নং ১৭৪৫১

অন্য বর্ণনায় আছে, আবদুল্লাহ ইবনে উমর (রাঃ) এর পুত্র সালেম (রহঃ) বলেন, আমার বাবা আমার এবং নুআইম ইবনে আবদুল্লাহর খতনা করলেন। তিনি এ উপলক্ষে একটি ভেড়া জবাই করলেন। আর আমরা এর গোশত কেটে কেটে বাচ্চাদেরকে দিতে থাকলাম।–মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা, বর্ণনা নং ১৭৪৫৫

সারকথা, বাচ্চাদের খতনা করে দাওয়াতের ব্যবস্থা করা এবং এতে অংশগ্রহণ করা অন্যান্য দাওয়াতের মতই জায়েয যদি এতে শরীআত বিরোধী কোন কর্মকাণ্ড না হয়ে থাকে। আর যদি এটাকে সুন্নাত বা মুস্তাহাব মনে করা হয় অথবা এতে কোন শরীআত গর্হিত কাজ হয়ে থাকে তবে এর আয়োজন করা বা এতে শরীক হওয়া জায়েয হবে না।- ফাতাওয়া হিন্দিয়া ৫/৩৪৩; আস সিআয়া ২/২৬৫; আলমুগনী ৮/১১৮; ফাতাওয়া মাহমূদিয়া ১৯/৪৬৪

২+৩। যদি স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে তারা দাওয়াত দিয়ে থাকে এবং সেখানে শরীআত বিরোধী কোন কাজ না হয়ে থাকে তবে শরীক হওয়া যেতে পারে। আর সেখানে শরীআত গর্হিত কোন কাজের আশংকা থাকলে যাওয়া জায়েয হবে না। -সহীহুল বুখারী, হাদীস নং ৬১০৮; ফাতাওয়া মাহমূদিয়া ১২/১৪২

 827,871 total views,  386 views today