প্রশ্ন : (প্রশ্ন : আসসালামু আলাইকুম সেদিন একটা লেখা দেখলাম “কেউ যদি বিয়ের আগে বলে ‘যত বিয়ে করব সব স্ত্রী ৩ তালাক’ তাহলে সে বিয়ে করলেই স্ত্রী তালাক হয়ে যাবে” আমি একজন অবিবাহিত ওয়াসওয়াসার রোগী। আমি কোনো কাজ ঠিক ভাবে করতে পারি না। উযূ করতে ১ঘণ্টা লাগে। মাঝে মাঝে নামায ২-৩বার পড়তে হয়। কিছুতেই মনকে শান্তি দিতে পারি না। কোনো নাপাক লাগলে ১২-১৩ বার ধুই। মাঝে মাঝে ভুল করে মৃত্যুও কামনা করে ফেলি। তার ওপর ওই লাইনটি দেখার পর মনে মনে বার বার লাইনটি মনে পড়ছে। আমি জানি মনে আসলে তালাক হয় না। তবুও বার বার সন্দেহ হয় যে, মনের কথাটি ভুল করে উচ্চারিত হয়ে যায়নি তো? আমি প্রচুর টেনশনে আছি।পড়াশোনা করতে পারছি না। সকাল সন্ধা যত বার লাইনটি মনে পড়ছে ততবার সন্ধেহ হচ্ছে যে, ভুল করে উচ্চারিত হয়েছে কিনা? টেনশনে আমি অস্থির হয়ে পড়েছি। মনে হচ্ছে বাঁচব না। আমি জানি যে মনে মনেই ভাবনা এসেছে। তবুও সন্ধেহ হচ্ছে। দয়া করে তাড়াতাড়ি চিন্তামুক্ত করবেন স্যার? আর আমাকে বাঁচাবেন স্যার? আল্লাহর কাছে আপনার জন্য প্রচুর দোয়া থাকবে আমার তরফ থেকে। উত্তর : ওয়া আলাইকুমুস সালাম আপনি উক্ত ওয়াসওয়াসার প্রতি কোন ভ্রূক্ষেপ করবেন না। আর এর দ্বারা বিবাহের পর আপনার স্ত্রী তালাকও হবে না। ওয়াসওয়াসা মারাত্মক একটি রোগ। যা মানুষকে ধীরে ধীরে কুফরী পর্যন্ত নিয়ে যায়। মানুষ ওয়াসওয়াসাকে যত গুরুত্ব দিতে থাকে তা তত বাড়তে থাকে। তাই আপনি যখন কোন আমল করবেন তখন উক্ত আমলের ব্যপারে অন্তরে কোন ওয়াসওয়াসা এলে তার প্রতি বিন্দুমাত্র ভ্রূক্ষেপ করবেন না। নতুবা শয়তান আপনাকে খুব ভালোভাবে পেয়ে বসবে। কেননা প্রত্যেক আমলে সংশয় সৃষ্টি করার জন্য নির্ধারিত শয়তান নিযুক্ত রয়েছে। যেমন উযূ করার সময় কোন অঙ্গ তিনবার ধৌত করার পর ওয়াসওয়াসা এলে শয়তানকে এই বলে শাসাবেন আমি আজ উযূ ছাড়াই নামায পড়ব। অনুরূপভাবে নাপাক কাপড় তিনবার ধৌত করার পর ওয়াসওয়াসা এলে শয়তানকে এই বলে শাসাবেন আমি নাপাক কাপড়েই নামায আদায় করব। এভাবে প্রত্যেকটি আমলেই ওয়াসওয়াসাকে উপেক্ষা করতে থাকুন। দেখবেন ধীরে ধীরে আপনার ওয়াসওয়াসা চলে যাবে ইংশাআল্লাহ। এভাবে কয়েকদিন আমল করার পর পুনরায় আপনার অবস্থা আমাকে অবহিত করার অনুরোধ রইল। ওয়াসওয়াসা সংক্রান্ত কয়েকটি প্রশ্নোত্তরের লিঙ্ক আপনার সুবিধার্থে দেওয়া হল। http://muftihusain.com/ask-me-details/?poId=680 http://muftihusain.com/ask-me-details/?poId=1181 http://muftihusain.com/ask-me-details/?poId=658 http://muftihusain.com/ask-me-details/?poId=603) নতুন প্রশ্নঃ আল্লাহ আপনার ভাল করুক। আপনার এই উত্তরে আমি কিছুদিন ভাল ছিলাম। কিন্তু কিছুদিন পর আবার ওয়াসওয়াসা গ্রাস করেছে। এখন আবার ওজু গোসল করতে মারাত্মক সময় লাগে। নামাযে সূরা পড়ার সময় ওই লাইনটি বারবার মনে আসে(যত বিয়ে করব সব স্ত্রী ৩ তালাক’)আর মারাত্মক সন্ধেহে পড়ে যাই উচ্চারিত হল কিনা? (কিন্তু লাইনটি মনে মনেই এসেছে)। পানি খাওয়ার সময়, ব্রাশ করার সময়, কুলকুচি করার সময় লাইনটি মনে হলেই সন্দেহে পরে যাই। ঘুমের মধ্য বা তন্দ্রা অবস্থাই মনে হয় বলা হয়েছে, তার পর মনে হয় নাতো সপ্নে দেখেছি। ওগুলো নিয়ে ২বার সপ্নও দেখেছি। এখন আরো সন্দেহ হয় যেন উচ্চারন করেছি। আমি পুনরায় মারাত্মক মানসিক টেনশনে পড়েছি। চিকিৎসাও করিয়েছি কোনো রোগ নেই। নামাযও ২-৩ বার করে পড়তে হয়। ঘরে চাবি দিয়েও ৫-৬ বার চেক করি। দুনিয়াটাও ভাল লাগছে না। কেন এরকম হচ্ছে বুঝতে পারছি না। কোনো কাজ ঠিকমত করতে পারছি না। কোনো আমলও শান্তিতে করতে পারছি না। বিশেষ করে তালাকের সন্ধেহটা আমার মানসিক অবস্থাকে জটিল থেকে জটিলতর করছে। যতবার লাইনটি মনে পড়ছে…আমাকে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব বাঁচাবেন স্যার এই যন্ত্রনা থেকে। আল্লাহর কাছে অসংখ্য অনেক দোয়া থাকবে আপনার জন্য।

উত্তর :

উক্ত কথা আপনার মনে আসার কারনে কোন সমস্যা হবে না। আপনার প্রশ্নগুলোর উত্তর কিন্তু পূর্বেই দেওয়া হয়েছে। কিন্তু আপনি যদি ওয়াসওয়াসাকে গুরুত্ব দিতে থাকেন তবে কে আপনাকে বাঁচাবে? ওয়াসওয়াসার ভয়ঙ্কর থাবা আপনাকে তিলে তিলে শেষ করে ফেলবে এবং কুফরী পর্যন্ত নিয়ে যাবে। তাই আপনি পূর্বের উত্তরটি এবং প্রদেয় লিঙ্কগুলো বারবার দেখতে থাকুন। আর ওয়াসওয়াসাকে উপেক্ষা করতে থাকুন। যেমন উযূর পরে সন্দেহ হলে শয়তানকে এই বলে শাসাবেন যে আমি আজ উযূ ছাড়াই নামায পড়ব। এভাবে দেখবেন একসময় আস্তে আস্তে আপনার ওয়াসওয়াসা দূর হয়ে যাবে ইংশাআল্লাহ।

 832,188 total views,  552 views today