প্রশ্ন : আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারকাতুহ। হযরত আমি গতকাল রাতে আমার স্ত্রীর সাথে মানুষের হক ও পাওনা আদায় সম্পর্কে হাদীসের আলোচনা করছিলাম। দীর্ঘ সময় আলোচনার সময় এক পর্যায়ে আমি আমার স্ত্রীকে বলি যে, তুমিও আমার কাছে একটি অনেক বড় হক বা পাওনা পাও যা আমি আদায় করিনি। সেটা কি তা জানতে চাইলে আমি বললাম যে, তোমার মোহরানা আদায় করতে পারি নাই। এখনো তা বাকীই রয়ে গেছে। অনুগ্রহ করে যদি তুমিও আমাকে তোমার এই পাওয়া মাফ করে দিতে? তখন আমার স্ত্রী খুব খুশি মনেই আমাকে বললো যে, আমি আপনাকে মাফ করে দিলাম। আমি বললাম ওয়াদা কর সে আমার হাতে হাত রেখে ওয়াদা করে বললো যে, আপনার হাত ধরে বললাম আমি আপনাকে মাফ করে দিয়েছি। তখন আমিও খুশি হয়ে বললাম তোমাকে আল্লাহ তাআলা জান্নাত দান করুন তুমি আমাকে অনেক বড় একটি ঋণ থেকে মুক্তি দিলে। একথা শুনে সে খুব খুশি হয় এবং বলে আমি মোহরানার টাকা দিয়ে কি করবো? এখন আমার প্রশ্ন আমার স্ত্রীর এই ভাবে বলার দ্বারা কি আমার মোহরানা মাফ হয়েছে?

উত্তর :

ওয়া আলাইকুমুস সালামওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহ
হ্যাঁ, যদি সে আসলেই সন্তুষ্টচিত্তে তা মাফ করে থাকে তবে তা মাফ হয়ে গিয়েছে।–মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং ২০৬৯৫; আলবাহরুর রায়েক ৩/২৬৩

 824,493 total views,  1,364 views today