প্রশ্ন : আসসালামু আলাইকুম। ১। আমি একটি মেয়েকে তার পিতা মাতাকে না জানিয়ে গোপনে বিয়ে করি। বিয়েতে মেয়েটির পূর্ণ সমর্থন ছিল। মেয়ের বাবার দুই শতাংশের একটি বাড়ি এবং দুই শতাংশ জায়গা আছে। কিন্তু আমার বাবার কোন জায়গা নেই। আমরা ভাড়া থাকি। এই একটি দিক বাদ দিলে সব দিক থেকে মেয়েদের পরিবার থেকে আমাদের পরিবার অনেক এগিয়ে। এক্ষেত্রে “কুফু” কি সঠিক আছে? মেয়ের পরিবার প্রথমে আমাকে পছন্দ না করলেও বর্তমানে তারা আমার কাছে মেয়ে বিয়ে দিতে রাজি। উল্লেখ্য, গোপনে বিয়ের ব্যাপারটা এখনো কেউ জানেনা। এই বিয়েটি কি সহীহ হয়েছে? ২। মেয়েটির সাথে একদিন আমার ঝগড়া লাগে। তখন ও আমার কাছে তালাক্ব চায়। আমি তালাক্ব দিতে অস্বীকার করি। ও খুব জোরাজুরি করে। তখন আমি ওকে বলি, “আচ্ছা যাও, তোমাকে ছেড়ে দিলাম। ও বলে, “কি, আবার বল, ছেড়ে দিলাম বললে হবে না। তালাক্ব বলতে হবে।” তখন আমি আবার বলি, আচ্ছা যাও, তালাক্ব দিলাম। আমি তখন কোন তালাক্বের সংখ্যা উল্লেখ করি নাই এবং পরবর্তীতে আর তালাক্ব বলি নাই। এক সাপ্তাহ পরে আবার আমরা নিজেরাই মিলে যাই। এই তালাক্বের ব্যাপারে হুকুম কি? বিঃদ্রঃ আমার প্রশ্ন বোধ হয় সংগত কারণেই অনেক বড় হয়ে গেছে। ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন। এই দুইটা বিষয় নিয়ে আমি একটু মানসিক সমস্যায় আছি। দয়া করে উত্তর দিয়ে বাধিত করলে খুবই উপকৃত হই।

উত্তর :

ওয়া আলাইকুমুস সালাম
প্রিয় দ্বীনী ভাই, সংগত কারনেই আপনার প্রশ্নটি তাহকীক করতে কিছুটা সময় লেগে গেল। এজন্য আন্তরিকভাবে দুঃখিত।
১। সন্মান, পেশা, দ্বীনদারী, বংশ, অর্থ ইত্যাদি দিক দিয়ে যদি আপনি মেয়ের পরিবারের সমকক্ষ হন তবে উক্ত বিবাহ হয়ে গিয়েছে।–রদ্দুল মুহতার ৩/৮৫, ৮৬; ফাতওয়ায়ে দারুল উলূম দেওবন্দ ৮/১৬১
২। “তোমাকে ছেড়ে দিলাম” একথা বলার দ্বারা আপনার স্ত্রীর উপর একটি তালাক পতিত হয়েছে। পরবর্তীতে আপনার স্ত্রীর এই বক্তব্য “কি, আবার বল, ছেড়ে দিলাম বললে হবে না। তালাক্ব বলতে হবে” এর জবাবে আপনি বলেছেন “আচ্ছা যাও, তালাক্ব দিলাম”। এ থেকে সাধারণত এটাই বুঝে আসে যে, আপনি উক্ত কথা দ্বারা পূর্বের ছেড়ে দেওয়ার বিষয়টিই পুনরাবৃত্তি অথবা তাকীদ বুঝানোর জন্য বলেছিলেন। যদি এমনটি হয় তবে পরের ঐ কথার দ্বারা নতুন করে কোন তালাক পতিত হয়নি। আর যদি উক্ত কথার দ্বারা নতুন করে তালাক দেওয়ার উদ্দেশ্য থাকে তবে এর দ্বারা আরো একটি তালাক অর্থাৎ মোট দুইটি তালাক পতিত হয়েছে। আর উভয় অবস্থায় (অর্থাৎ তালাক একটি হোক বা দুইটি) এক সপ্তাহ পরে আপনারদের মিলে গিয়ে পুনরায় সংসার করা বৈধ। সেক্ষেত্রে আপনার স্ত্রীর উপর একটি তালাক পতিত হলে ভবিষ্যতে আপনি দুইটি তালাকের এবং দুইটি তালাক পতিত হলে ভবিষ্যতে আপনি একটি তালাকের মালিক থাকবেন। ভবিষ্যতে কখনো এই একটি বা দুটি তালাক দিলে তিনি আপনার জন্য স্থায়ীভাবে হারাম হয়ে যাবেন। শরয়ী হালালাহ ব্যতীত তিনি আপনার জন্য আর বৈধ হবেন না।–বাদায়েউস সানায়ে ৪/২২৪; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/৩৫৫; ফাতাওয়া মাহমূদিয়া ১২/২০৭, ২০৮

 826,470 total views,  830 views today