প্রশ্ন : আসসালামু আলাইকুম, তাহাজ্জুদ নামায পড়লে ঘুমের কারনে আর ইশরাক পড়তে পারি না। আবার ইশরাক পড়তে চাইলে তাহাজ্জুদ পড়তে পারি না। কোন আমলটা উত্তম হবে?

উত্তর :

ওয়া আলাইকুমুস সালাম

খুব সহজেই উভয়ের মধ্যে সমন্বয় করতে পারেন। অর্থাৎ উভয়টির উপর আমল করতে পারেন। তাহাজ্জুদ পড়ার কারনে ফজরের পরে ঘুমের প্রয়োজন হলে ঘুম থেকে উঠেও ইশরাক পড়তে পারেন। সূর্য উদয়ের আনুমানিক ১০ মিনিট পর থেকে ইশরাকের ওয়াক্ত শুরু হয়। দ্বিপ্রহরের পূর্ব পর্যন্ত ওয়াক্ত বাকি থাকে। তবে শুরুতে পড়া উত্তম। এ নামায সর্বনিম্ন দুই রাকাআত এবং সর্বোচ্চ চার রাকাআত পড়া যায়। ফজরের নামাযের পর সেই স্থানে বসে যিকির-আযকারে মশগুল থেকে সময় হয়ে গেলে ইশরাকের নামায আদায় করলে ছাওয়াব বেশি পাওয়া যায়। বাড়িতে গিয়ে বা কোন দুনিয়াবি কাজে মশগুল হয়েও এ নামায আদায় করা যায় তবে ছাওয়াব কিছুটা কম হয়। এ নামায আদায়ের দ্বারা একটি হজ ও একটি ওমরার ছাওয়াব পাওয়া যায়।- সুনানে তিরমিজী, হাদীস নং ৫৮৬; সুনানে আবূ দাউদ, হাদীস নং ১২৯১; রদ্দুল মুহতার ১/৬৩৯; আহসানুল ফাতাওয়া ৩/৪৬৫,৪৬৭

 833,700 total views,  915 views today