প্রশ্ন : আসসালামু আলাইকুম সালাফিরা বলেন: হাতে তাসবীহ না গুনে তাসবীহ দ্বারা গুনলে নাকি হবে না! আমার ধারণা ৩৩ বা ১০০ এই রকম অল্প পরিমাণ তাসবীহ হলে হাতে গণনা করা সম্ভব, কিন্তু যারা আরো অধিক পরিমাণ ওজীফা আদায় করেন তারা তাসবীহ ছাড়া হাতের গণনা দ্বারা করতে গেলে তা প্রায় অসম্ভব। তাছাড়া সালাফিরা বলেন এত গণনার দরকার নাই, গণনা তো আল্লাহ তাআলা রাখবেন? আসলেই কি নেই? আমরা সন্দেহের মধ্যে পড়ে যাচ্ছি। বিষয়টি একটু পরিস্কার করবেন।

উত্তর :

ওয়া আলাইকুমুস সালাম

১। عَنْ سَعْدِ بْنِ أَبِى وَقَّاصٍ أَنَّهُ دَخَلَ مَعَ رَسُولِ اللَّهِ -صلى الله عليه وسلم- عَلَى امْرَأَةٍ وَبَيْنَ يَدَيْهَا نَوًى أَوْ حَصًى تُسَبِّحُ بِهِ فَقَالَ « أُخْبِرُكِ بِمَا هُوَ أَيْسَرُ عَلَيْكِ مِنْ هَذَا أَوْ أَفْضَلُ ». فَقَالَ « سُبْحَانَ اللَّهِ عَدَدَ مَا خَلَقَ فِى السَّمَاءِ وَسُبْحَانَ اللَّهِ عَدَدَ مَا خَلَقَ فِى الأَرْضِ وَسُبْحَانَ اللَّهِ عَدَدَ مَا خَلَقَ بَيْنَ ذَلِكَ وَسُبْحَانَ اللَّهِ عَدَدَ مَا هُوَ خَالِقٌ وَاللَّهُ أَكْبَرُ مِثْلُ ذَلِكَ وَالْحَمْدُ لِلَّهِ مِثْلُ ذَلِكَ. وَلاَ إِلَهَ إِلاَّ اللَّهُ مِثْلُ ذَلِكَ. وَلاَ حَوْلَ وَلاَ قُوَّةَ إِلاَّ بِاللَّهِ مِثْلُ ذَلِكَ »

অর্থঃ হযরত সাদ ইবনে আবী ওয়াক্কাস (রাঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সাথে এক মহিলার নিকট প্রবেশ করলেন। তার (ঐ মহিলার) সামনে কিছু খেজুরের বিচি বা কঙ্কর ছিল, যা দ্বারা তিনি তাসবীহ পাঠ করছিলেন। তখন রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, আমি তোমাকে এমন পদ্ধতি বলে দিচ্ছি যা তোমার জন্য এর চেয়ে সহজ বা উত্তম হবে। অতঃপর তিনি (নিম্নোক্ত দুআ) পড়লেন-

« سُبْحَانَ اللَّهِ عَدَدَ مَا خَلَقَ فِى السَّمَاءِ وَسُبْحَانَ اللَّهِ عَدَدَ مَا خَلَقَ فِى الأَرْضِ وَسُبْحَانَ اللَّهِ عَدَدَ مَا خَلَقَ بَيْنَ ذَلِكَ وَسُبْحَانَ اللَّهِ عَدَدَ مَا هُوَ خَالِقٌ وَاللَّهُ أَكْبَرُ مِثْلُ ذَلِكَ وَالْحَمْدُ لِلَّهِ مِثْلُ ذَلِكَ. وَلاَ إِلَهَ إِلاَّ اللَّهُ مِثْلُ ذَلِكَ. وَلاَ حَوْلَ وَلاَ قُوَّةَ إِلاَّ بِاللَّهِ مِثْلُ ذَلِكَ

-সুনানে আবূ দাউদ, হাদীস নং ১৫০২; সুনানে তিরমিজী, হাদীস নং ৩৫৬৮; মুস্তাদরাকে হাকেম, হাদীস নং ২০০৯

২। عَنْ يُسَيْرَةَ أَخْبَرَتْهَا أَنَّ النَّبِىَّ -صلى الله عليه وسلم- أَمَرَهُنَّ أَنْ يُرَاعِينَ بِالتَّكْبِيرِ وَالتَّقْدِيسِ وَالتَّهْلِيلِ وَأَنْ يَعْقِدْنَ بِالأَنَامِلِ فَإِنَّهُنَّ مَسْئُولاَتٌ مُسْتَنْطَقَاتٌ

অর্থঃ হযরত ইউসাইরা (রাঃ) থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাদেরকে তাকবীর (আল্লাহু আকবার), তাকদীস (সুবহানাল্লাহ) ও তাহলীল (লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ) এর শব্দগুলোকে হিফাজত ও গননার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন এবং তিনি এসব আঙ্গুলের গিরার দ্বারা গননা করতে বলেছেন। কেননা কিয়ামতের দিন আঙ্গুলসমূহকে এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করা হবে এবং তারা এর স্বীকৃতি প্রদান করবে।

-সুনানে আবূ দাউদ, হাদীস নং ১৫০৩; সুনানে তিরমিজী, হাদীস নং ৩৫৮৩; মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং ২৭০৮৯

৩। عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ عَمْرٍو قَالَ رَأَيْتُ رَسُولَ اللَّهِ -صلى الله عليه وسلم-يَعْقِدُ التَّسْبِيحَ قَالَ ابْنُ قُدَامَةَ بِيَمِينِهِ

অর্থঃ হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আমর (রাঃ) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে তাসবীহ পাঠের সময় তার আঙ্গুল গননা করতে দেখেছি। বর্ণনাকারী ইবনে কুতাইবার রেওয়ায়েতে আছে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তা তার ডান হাতে গণনা করতেন।

– সুনানে আবূ দাউদ, হাদীস নং ১৫০৪; সহীহ ইবনে হিব্বান, হাদীস নং ৮৪৩

উপরোক্ত হাদীসগুলো থেকে তাসবীহাত সমূহ পাথর দিয়ে গণনা করা এবং হাতে গণনা উভয়টি প্রমানিত হয়। এখন কঙ্কর দ্বারা গণনা করা জায়েয হলে প্রচলিত তাসবীহের দানা দ্বারা নাজায়েয হওয়ার কারন কি?

আল্লামা শাওকানী (রহঃ) উপরোক্ত হাদীসগুলো আনার পরে বলেন-

والحديثان الآخران يدلان على جواز عد التسبيح بالنوى والحصى وكذا بالسبحة

অর্থঃ শেষ হাদীস দুটি (যার মধ্যে আমাদের উল্লেখিত প্রথম হাদীসটি রয়েছে) কঙ্কর এবং খেজুরের বিচি দ্বারা তাসবীহ গণনা জায়েয হওয়া প্রমান করে। অনুরূপভাবে (প্রচলিত) তাসবীহ দ্বারাও জায়েয।-নাইলুল আওতার ২/৩৫৮

আসলে এদের উদ্দেশ্যই মনে হয় উম্মতকে আমল থেকে বঞ্চিত করা এবং তাদের মাঝে ফেতনা সৃষ্টি করা। তাই এদের বক্তব্য শোনাই উচিত নয়। আর অসংখ্য হক্কানী উলামায়ে কেরাম থাকতে এদের কথা শুনে বিভ্রান্ত হওয়ারও বা কি দরকার?

 826,807 total views,  75 views today