প্রশ্ন : আসসালামু আলাইকুম। ছোটবেলা থেকে জেনে আসছি পৃথিবী সূর্যের চারিদিকে ঘোরে। বিজ্ঞানও এটাই দাবি করে। এবং বর্তমান পৃথিবীর ৯০ ভাগ মানুষই এটা বিশ্বাস করে। বছর দুই আগে জানতে পারলাম কুরআন নাকি ভিন্ন কথা বলছে। পৃথিবী নয়; বরং সূর্যই পৃথিবীর চারিদিকে ঘোরে। পৃথিবী সম্পূর্ণ স্থীর। প্রশ্ন হচ্ছে, কুরআনের কোথাও কি এই বিষয়ে আলোকপাত করা হয়েছে? প্রশ্ন-২. যদি কুরআনে বলা হয়ে থাকে সূর্য ঘোরে তাহলে যারা বিশ্বাস করে পৃথিবী সূর্যের চারিদিকে ঘোরে তাদের ঈমানে কোন সমস্যা হবে? কেননা, তারা তো কুরআনের আয়াতকে অবিশ্বাস করল। বিস্তারিত জানালে উপকৃত হই।

উত্তর :

ওয়া আলাইকুমুস সালাম

উল্লেখিত প্রশ্নটি ভারতবর্ষের অন্যতম বিখ্যাত আলেম মুফতী মাহমূদ হাসান গাঙ্গুহী (রহঃ) কে করা হয়েছিল। যা তার অনবদ্য কিতাব ফাতওয়ায়ে মাহমূদিয়ার চতুর্থ খণ্ডে ১৭৮ নম্বর পৃষ্ঠায় রয়েছে। তিনি যে উত্তর দিয়েছিলেন তাই উল্লেখ করলাম-

“সূর্য ও পৃথিবী চলমান নাকি স্থির এবং কে কাকে কেন্দ্র করে ঘুরছে এ ব্যাপারে শরীয়তে স্পষ্ট কোন আলোচনা নেই। আর না এর সাথে আকীদা বা আমলের কোন সম্পর্ক আছে। এর মধ্য থেকে কোনটি চলমান হলে বা স্থির হলে শরীয়তের কোন হুকুমে এর কোন প্রভাব পড়ে না। এগুলোর পিছনে পড়া সময়কে নষ্ট করা। পৃথিবীর সকল সৃষ্টিকে আল্লাহ তাআলা সৃষ্টি করেছেন মানুষের জন্য। আর মানুষকে সৃষ্টি করেছেন তার মালিককে রাযী করার জন্য এবং যেগুলো আখেরাতে উপকারে আসবে সেগুলো হাসিল করার জন্য। এগুলোর পিছনে পড়ে আসল উদ্দেশ্য থেকে সরে যাওয়া অনেক বড় উদাসীনতা”।

তাই প্রিয় দ্বীনী ভাই এসব চিন্তা বাদ দিয়ে সে সময়ে দু একবার যিকির করুন না, অনেক লাভবান হবেন। আর আপনি নিশ্চিত থাকুন আপনাকে কবরে বা আখেরাতে এ ব্যাপারে কোন প্রশ্ন করা হবে না। দেখুন সাহাবায়ে কেরাম চাঁদের ব্যাপারে আশ্চর্য হয়ে প্রশ্ন করেছিলেন, ইয়া রাসূলুল্লাহ এই চাঁদের বিষয়টি কেমন? তা ছোট থাকে। অতঃপর আবার বড় হতে থাকে। এরপর পুনরায় ছোট হয়ে যায়। তখন তাদের এই প্রশ্নের জবাবে আল্লাহ তাআলা বললেন, “তারা আপনকে চাঁদ (এর ছোট বড় হওয়ার বিষয়) সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করে, বলুন তা মানুষের (ইবাদাত বন্দেগীর) জন্য এবং হজের জন্য সময় নির্ধারক”।(সূরা বাকারাহ, আয়াত ১৮৯) দেখুন আল্লাহ তাআলা তাদের প্রশ্নটি এড়িয়ে গিয়ে যেটা তাদের প্রয়োজন সেটা উল্লেখ করেছেন।

 

 827,882 total views,  397 views today