প্রশ্ন : ১। আমার একটা সমস্যা পেশাব করে যখন পানি অথবা টিস্যু নিই পবিত্র হওয়ার জন্য তখন পানি নেওয়ার কিছুক্ষণ পরে দেখি লজ্জাস্থান এর মাথায় ফোঁটা ফোঁটা পানির মত জমা হয়ে থাকে। আমি পানি নেওয়ার পর লজ্জাস্থান এর দিকে তাকাই তখন এটা বুঝতে পারি। অনেক সময় তাড়াহুড়া করে বের হয়ে গেলে বাথরুম থেকে বের হওয়ার পর মনে হয় ফোঁটা ফোঁটা পেশাব কাপড়ে লাগছে। এর সমাধান কি? ২। এ কারনে আমার বাথরুমে অনেক সময় লাগে। তা না করলে মনে হয় পেশাব ক্লিয়ার হয়নি। এই নিয়ে অনেক সময় অস্বস্তিতে পড়ি কারন অধিকাংশ মানুষকে ঠুসঠাস পানি দিয়ে উঠে যেতে দেখা যায়। এ ক্ষেত্রে আমার কি করণীয়?

উত্তর :

১+২। এ সংক্রান্ত প্রশ্নের উত্তর সম্ভবত আপনাকে একবার নিম্নোক্ত লিঙ্কে দেওয়া হয়েছিল-
http://muftihusain.com/ask-me-details/?poId=2469
আপনি ঐ লিঙ্কটি পুনরায় দেখুন। সেখানেই এর বিস্তারিত উত্তর দেওয়া হয়েছিল। আপনি সম্ভবত ওয়াসওয়াসার সমস্যায় ভুগছেন। এর প্রতি আপনি যত গুরুত্ব দিবেন ধিরে ধিরে তা বাড়তেই থাকবে এবং আপনার অস্থিরতাও বাড়তে থাকবে। এজন্যই হাদীস শরীফে বলা হয়েছে ইস্তেঞ্জার পরে লজ্জাস্থান বরাবর কিছু পানি ছিটিয়ে দেওয়ার জন্য। যাতে পরবর্তীতে ওয়াসওয়াসা এলেও সে মনে করবে এটা তো সেই পানি যা আমিই ছিটিয়ে দিয়েছিলাম। আর মনে হয় বলে যে ধারনার কথা আপনি উল্লেখ করেছেন তা ওয়াসওয়াসা। এর প্রতি ভ্রূক্ষেপ করার প্রয়োজন নেই।
পূর্বোক্ত লিঙ্কে বলা হয়েছিল “যখনি মনে এই ইয়াকীন হাসিল হবে যে, পেশাবের কতরা বন্ধ হয়ে গিয়েছে তখনি ইসতেবরা বন্ধ করবে। তবে কখনো কিছু বের হওয়ার প্রবল ধারনা হলে আড়ালে হাত দিয়ে দেখে নিবেন। যদি কিছু পাওয়া যায় তবে পরবর্তীতে এর চেয়ে বেশিক্ষণ ইসতেবরা করবেন এবং নিশ্চিত হবেন। আর কোন কিছু পাওয়া না গেলে ভবিষ্যতে পূর্বোক্ত পরিস্থিতির সম্মুখীন হলে একে কোন পাত্তা দিবেন না। সেক্ষেত্রে এটা কেবল আপনার ওয়াসওয়াসা হিসেবে গণ্য হবে”।
আবারো বলছি ইস্তেঞ্জায় পানি ব্যবহার করলে তো লজ্জাস্থান এর মাথায় ফোঁটা ফোঁটা পানির মত জমা হয়ে থাকবেই। এটা তো আপনার ব্যবহারিত পানির অংশ। আর সর্বশেষে টিসু ব্যবহার করলে লজ্জাস্থানের ছিদ্রে কোন কিছু অবশিষ্ট না থাকার কথা। কেননা টিসু তা চুষে নেয়। সেক্ষেত্রে সর্বশেষে টিস্যু ব্যবহারের পরেও পরবর্তীতে লজ্জাস্থান এর মাথায় ফোঁটা ফোঁটা পানির মত জমা হয়ে থাকলে তা নিঃসন্দেহে পেশাব। কাজেই সেক্ষেত্রে পরবর্তীতে পেশাবের পর পূর্বের চেয়ে আরো বেশি সময় নিয়ে ইস্তেবরা (পেশাবের কতরা বন্ধ করার চেষ্টা করবেন) করবেন। আর পেশাবের কতরা বন্ধ হতে খুব বেশি সময় লাগলে চিকিৎসকের সরনাপন্ন হোন। মনে কি হয় তার দিকে খেয়াল না দিয়ে বাস্তবতার উপর আমল করুন।
সারকথা পেশাবের কতরা বন্ধ করতে যতটুকু সময় নেওয়া প্রয়োজন নিবেন। এরপরেও কখনো পেশাব নিশ্চিতভাবে দেখলে পরবর্তীতে আরো বেশি সময় নিবেন। কোন ওয়াসওয়াসার প্রতি ভ্রূক্ষেপ করবেন না।
নিম্নে আপনার সুবিধার্থে ওয়াসওয়াসা সংক্রান্ত আরো কিছু লিঙ্ক দেওয়া হল-
http://muftihusain.com/ask-me-details/?poId=680
http://muftihusain.com/ask-me-details/?poId=1181
http://muftihusain.com/ask-me-details/?poId=658
http://muftihusain.com/ask-me-details/?poId=603
http://muftihusain.com/ask-me-details/?poId=1492

 830,947 total views,  166 views today