প্রশ্ন : ১। শেষ বৈঠকে তাশাহহুদের আগে দুই সিজদার মাঝখানে যেই দুআ পড়তে হয় সেটা পড়ে ফেলেছি। তারপর মনে আসার পরে তাশাহহুদ পড়েছি। সাহু সিজদাহ দিতে হবে? ২। ঢিলা এবং কুলুখের মধ্যে পার্থক্য কী? ঢিলা-কুলুখ ব্যবহারের সুন্নত পদ্ধতি জানতে চাই? ৩। কেউ যদি জন্মদিনের কেক কাটার সময় বিসমিল্লাহ পড়ে তাহলে কুফরী হবে?

উত্তর :

১। যদি তাশাহহুদ শুরু করতে তিন তাসবীহ পরিমাণ বিলম্ব হয় অথবা বিয়াল্লিশ হরফ পরিমাণ দুআ পড়া হয় তবে সিজদায়ে সাহূ ওয়াজিব হবে।–ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/১২৭; আহসানুল ফাতাওয়া ৪/৩৬
২। ঢিলা হল মাটি জাতীয় বস্তু। আর কুলুখ হল পেশাব পায়খানার পর পবিত্রতা অর্জনের জন্য মাটি পাথর বা টিস্যু জাতীয় যে বস্তু ব্যবহার করা হয় তার নাম। উভয়টি আসলে সমার্থবোধক জাতীয় শব্দ। উদ্দেশ্য একই।
পেশাব পায়খানার পর ঢিলা-কুলুখ ব্যবহার করা সুন্নত। পায়খানার পর পানি খরচ করার পূর্বে তিন বার ঢিলা-কুলুখ বা টয়লেট পেপার ব্যবহার করা সুন্নত। পেশাবের পর ঢিলা-কুলুখ নিয়ে আড়ালে খানিকটা হাটা চলা করে কতরা বন্ধ হওয়া নিশ্চত করবে। ঢিলা-কুলুখ ব্যবহারের পর পনি ব্যবহার করা সুন্নত। ঢিলা-কুলুখ ও পানি বাম হাত দিয়ে ব্যবহার করবে। ডান হাত দ্বারা লজ্জাস্থান স্পর্শ করবে না। অনুরূপভাবে হাড্ডি, কয়লা ও পশুর মল ঢিলা-কুলুখ হিসাবে ব্যবহার করবে না।-সুনানে আবু দাউদ, হাদীস নং ৩৯; সহীহ মুসলীম, হাদীস নং ৯৩০; মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং ১৯০৭৬; সহীহুল বুখারী, হাদীস নং ১৫০, ১৫৪
৩। না, কুফরী হবে না। তবে জন্মদিনে কেক কাটা স্বতন্ত্রভাবে গোনাহের কাজ।

 824,496 total views,  1,367 views today