প্রশ্ন : ১। আমি একজন কবুতর খামারী। আমার কবুতর পালনের উদ্দেশ্য হচ্ছে বাচ্চা উৎপাদন করে তা বিক্রয় করা। যদি ৫০ জোড়া কবুতর পালন করে তা দ্বারা বাচ্চা উৎপাদন করে বিক্রয় করা হয় তবে এই ৫০ জোড়া কবুতর কি যাকাতের নেসাবে আসবে? ২। যদি কখনো মত পরিবর্তন করে সিদ্ধান্ত নেই কবুতর বাড়াতে থাকবো তাহলে কিভাবে যাকাতের হিসাব করবো? ৩। যদি কবুতর বড় করে বিক্রয়ের নিয়ত করি তবে কিভাবে যাকাতের হিসাব করবো?

উত্তর :

১। না, আসবে না। বরং সেগুলোর বাচ্চা বিক্রির আয়ের উপর বছরান্তে যাকাত আসবে যদি আপনি নেসাবের মালিক হন।
২। বিক্রির নিয়ত না করলে তাতে যাকাত আসবে না।
৩। সেক্ষেত্রে বছরান্তে কবুতরের বাজারদরের উপর যাকাত আসবে যদি আপনি নেসাবের মালিক হন।
উল্লেখ্য যে, যদি আপনি বিক্রি না করার উদ্দেশ্যে কবুতর ক্রয় করে থাকেন এবং পরবর্তীতে বিক্রির নিয়ত করে থাকেন তবে বিক্রি না করা পর্যন্ত তার উপর যাকাত আসবে না। বরং বিক্রির পর তার মূল্য হস্তগত হলে এবং আপনি নেসাবের মালিক হলে তার যাকাত আসবে।
সুত্রসমূহঃ মাজমাউল আনহুর ১/৩০৬; তাবইয়ীনুল হাকায়েক ২/৭৭

 824,378 total views,  1,249 views today