প্রশ্ন : আসসালামু আলাইকুম, হুজুর,কারো থেকে যদি মোবাইল কিনি কিন্তু সেটা যদি চুরির হয় কিন্তু আমি তা জানি না। চুরি হওয়া মোবাইল এই সন্দেহে মোবাইল কিনলে শরীয়তে কোনো বাধা আছে কি?

উত্তর :

ওয়া আলাইকুমুস সালাম
চোরাই মাল ক্রয়-বিক্রয় করা সম্পূর্ণ নাজায়েয ও হারাম। কেননা চোরাই মালের মালিক বিক্রেতা নয়। আর ক্রয়-বিক্রয়ের অন্যতম শর্ত হলো, বিক্রেতা পণ্যের/সম্পদের মালিক হওয়া। কারো সম্পদ চুরি বা আত্মসাৎ করা অনেক বড় গোনাহের কাজ। চোরের জন্য ফরজ হলো আল্লাহ তাআলার নিকট খাঁটি দিলে তওবা করে চুরিকৃত জিনিসটি দ্রুত মালিককে ফেরত দেওয়া। অথচ তা না করে চুরিকৃত জিনিসটি বিক্রি করে দেওয়া চুরি এবং আত্মসাতের মতো ভয়াবহ অপরাধকে আরো প্রতিষ্ঠিত করার নামান্তর। যা স্বতন্ত্র কবীরা গুনাহ। আর যে ব্যক্তি জেনে-শুনে তা ক্রয় করল সেও এ কবীরা গুনাহে শরীক হলো।
তবে কেউ কোন কিছু না জেনে ক্রয় করলে সেক্ষেত্রে সে মাযূর। কিন্তু চুরির সন্দেহ হলে ক্রয় করা থেকে বিরত থাকা কর্তব্য। কেননা সন্দেহ মূলক জিনিস থেকেও বেঁচে থাকা মুমিনের অন্যতম সিফাত।–সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ৪১৭৮; বাদায়েউস সানায়ে ৬/৩৭৪, ৩৪০; আলবাহরুর রায়েক ৫/২৫৯

 822,994 total views,  991 views today