প্রশ্ন : আসসালামু আলাইকুম। আল্লাহ তায়া’লা বলেছেন তার সাথে শিরক, কুফরী করলে ক্ষমা করবেন না কখনোই, তাহলে আমাদের প্রিয়নবী হজরত মুহাম্মদ (স) (আ) আবু লাহাবকে বলেছিলেন কালিমা পড়ে অন্তত ম্রত্যু গ্রহণ করতে, যদি এমন হতো শিরক গুনাহ কোনো দিন ক্ষমা হতো না তাহলে আমাদের নবী কেনো এই কালিমা পড়তে বললেন? এর মানে কি এটা দুনিয়ায় যতই গুনাহ করুক কালিমার সুবাদে জান্নাতে একদিন হলেও যাবে? ধন্যবাদ

উত্তর :

ওয়া আলাইকুমুস সালাম
“আল্লাহ তাআলা শিরক ক্ষমা করবেন না” এর অর্থ হল তাওবা না করলে ক্ষমা করবেন না। অন্য যে কোন গুনাহ আল্লাহ তাআলা ইচ্ছা করলে তাওবা ছাড়াই মাফ করতে পারেন। কিন্তু শিরক তাওবা ব্যতীত মাফ করবেন না।
আর কোন অমুসলিম যখন ইসলাম গ্রহন করে তখন তার অতীতের সকল আল্লাহর হক মাফ হয়ে যায়। তার সকল শিরকও মাফ হয়ে যায়। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ করেন-
أن الإسلام يهدم ما كان قبله
অর্থঃ ইসলাম অতীতের সকল গুনাহ মিটিয়ে দেয়।–সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ৩৩৬
কেউ তার মায়ের স্তনে হাত দিলে তার মা তার আব্বার জন্য হারাম হবে কি?
যদি কেউ অজান্তেই তার মায়ের স্তনে হাত দিয়ে থাকে তাহলে কি তার মা তার আব্বার জন্য হারাম হবে? এক্ষেত্রে কি করনীয় দয়া করে বলবেন?
হ্যাঁ, যদি শাহওয়াতের সাথে স্পর্শ করে থাকে তবে হুরমাতে মুছাহারাহ সাব্যস্ত হওয়ায় তার মাতা তার পিতার জন্য হারাম হয়ে যাবে। আর শাহওয়াতের সাথে স্পর্শ না করে থাকলে বরং এমনিতেই ভুলে কখনো হাত লেগে গেলে এবং শাহওয়াত না থাকলে কোন সমস্যা নেই। শাহওয়াতের অর্থ আপনি নিম্নোক্ত লিঙ্কে জানতে পারবেন-
http://muftihusain.com/ask-me-details/?poId=4459

 829,260 total views,  783 views today