১। দুই ঈদের রাতে সাধ্যমত জাগ্রত থেকে কিছু ইবাদাত বন্দেগী করা। হাদীস শরীফে বর্নিত আছে এই দুই রাতে যারা ছাওয়াবের আশায় জাগরিত থেকে ইবাদত বন্দেগীতে মশগুল থাকবে, তাদের অন্তর ঐ দিন (কিয়ামতের দিন) মরবে না যেদিন সমস্ত অন্তর মারা যাবে। (সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং ১৭৮২; শুআবুল ঈমান, হাদীস নং ৩৭১১)
২। অন্য দিনের তুলনায় কিছুটা সকাল সকাল ঘুম থেকে উঠা। (ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/১৬৫)
৩। মিসওয়াক করা। (মুসান্নাফে আব্দুর রাজ্জাক, বর্ণনা নং ৫৭৪৫; বাদায়েউস সানায়ে ২/৩৫৬; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/১৬৫)
৪। ভালভাবে গোসল করা। (সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং ১৩১৫; মুআত্তা মালেক, হাদীস নং ৬০৯; সুনানে বাইহাক্বী, হাদীস নং ৬৩৪৪)
৫। শরয়ী সীমারেখার ভিতরে থেকে সাজসজ্জা করা। (সহীহুল বুখারী, হাদীস নং ৩০৫৪; সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ৫৫২৫)
৬। সামর্থ অনুযায়ী উত্তম পোশাক পরিধান করা। (সহীহুল বুখারী, হাদীস নং ৯৪৮; সুনানে নাসায়ী, হাদীস নং ১৫৫৯; সুনানে বাইহাক্বী, হাদীস নং ৬৩৫৬)
৭। সুগন্ধি ব্যবহার করা। (মুস্তাদরাকে হাকেম, হাদীস নং ৭৫৬০; শুআবুল ঈমান, বাইহাক্বী, হাদীস নং ৩৭১৫)
৮। ঈদুল ফিতরে ঈদগাহে যাওয়ার পূর্বে খেজুর ইত্যাদি মিষ্টি জাতীয় কোন কিছু খেয়ে নেওয়া। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বিজোড় সংখ্যক খেজুর খেতেন। আর ঈদুল আযহাতে কোন কিছু না খেয়ে যাওয়া। এই দিন নিজের কুরবানীর গোশত দ্বারা আহার শুরু করা মুস্তাহাব। (সহীহুল বুখারী, হাদীস নং ৯৫৩; মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং ২৩০৪২; সহীহ ইবনে খুযাইমা, হাদীস নং ১৪২৬)
৯। সকাল সকাল ঈদগাহে যাওয়া। (সুনানে আবূ দাউদ, হাদীস নং ১১৩৭; সহীহ বুখারী, হাদীস নং ৯৬৮)
১০। ঈদুল ফিতরে ঈদগাহে যাওয়ার পূর্বে ছদকায়ে ফিতর না দিয়ে থাকলে তা আদায় করে যাওয়া। (সহীহ বুখারী, হাদীস নং ১৫০৯; সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২৩৩৫)
১১। ঈদগাহে ঈদের নামায আদায় করা, বিনা ওজরে মসজিদে আদায় না করা। (সহীহুল বুখারী, হাদীস নং ৯৭৩; সুনানে নাসায়ী, হাদীস নং ১৫৭৫)
১২। পায়ে হেটে ঈদগাহে যাওয়া। (সুনানে তিরমিজী, হাদীস নং ৫৩০; সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং ১২৯৪)
১৩। ঈদুল ফিতরে ঈদগাহে যাওয়ার সময় আস্তে আস্তে এই তাকবীর পড়তে থাকা-
اللَّهُ أكْبَرُ اللَّهُ أكْبَرُ لا إِلهَ إِلاَّ اللَّهُ، واللَّهُ أكْبَرُ اللَّهُ أكْبَرُ ولِلَّهِ الحَمْدُ
আর ঈদুল আযহায় ঈদগাহে যাওয়ার সময় উক্ত তাকবীর আওয়াজ করে পড়তে থাকা। (সুনানে বাইহাক্বী, হাদীস নং ৬৩৪৮; সুনানে দ্বারাক্বুতনী, হাদীস নং ১৭৩৫; মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা, বর্ণনা নং ৫৬৫১; ইলাউস সুনান ৮/১১৪-১১৮)
১৪। ঈদগাহে যাওয়ার সময় এক রাস্তা দিয়ে যাওয়া এবং ভিন্ন রাস্তা দিয়ে ফিরে আসা। (সহীহুল বুখারী, হাদীস নং ৯৮৬; সহীহ ইবনে খুযাইমা, হাদীস নং ১৪৬৮)
১৫। একে অপরকে অভিনন্দন জানানোর সময় تَقَبَّلَ اللَّهُ مِنَّا وَمِنْكَ বলা। (সুনানে বাইহাক্বী, হাদীস নং ৬৫১৯; ফাতহুল বারী ২/৪৪৬)
১৬। দুই ঈদের দিন ঈদগাহে নামায পড়ে বাড়ী ফেরার পূর্বে কোন প্রকার নফল নামায না পড়া। (সহীহুল বুখারী, হাদীস নং ৯৮৩; সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ২০৯৪)

 26 total views,  1 views today