১। প্রত্যেক ফরজ নামাযের পর তিন বার ইস্তিগফার পড়া-
أَسْتَغْفِرُ اللَّهَ أَسْتَغْفِرُ اللَّهَ أَسْتَغْفِرُ اللَّهَ
(সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ১৩৬২; সুনানে নাসায়ী, হাদীস নং ১৩৩৬)
২। নিম্নোক্ত দুআগুলো পড়া-
اللَّهُمَّ أَنْتَ السَّلاَمُ وَمِنْكَ السَّلاَمُ تَبَارَكْتَ يَا ذَا الْجَلاَلِ وَالإِكْرَامِ (ক)

(সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ১৩৬৩; সুনানে আবূ দাউদ, হাদীস নং ১৫১৪)
(খ) لَا إِلَهَ إِلَّا اللَّهُ وَحْدَهُ لَا شَرِيكَ لَهُ لَهُ الْمُلْكُ وَلَهُ الْحَمْدُ وَهُوَ عَلَى كُلِّ شَيْءٍ قَدِيرٌ اللَّهُمَّ لَا مَانِعَ لِمَا أَعْطَيْتَ وَلَا مُعْطِيَ لِمَا مَنَعْتَ وَلَا يَنْفَعُ ذَا الْجَدِّ مِنْكَ الْجَدُّ
(সহীহুল বুখারী, হাদীস নং ৬৩৩০; সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ১৩৬৬)
উপরোক্ত আমলগুলো ফরজ নামাযের পরেই করবে। এছাড়াও আরো কিছু মাসনূন আমল আছে যা সুন্নাত ও নফল না থাকলে ফরজের পরেই পড়বে। (সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ১৩৬৩; সহীহুল বুখারী, হাদীস নং ৮৪৯; ইলাউস সুনান ৩/১৮৮)
আমলগুলো এই-
১। আয়াতুল কুরসী পড়া। (আস-সুনানুল কুবরা, নাসায়ী, হাদীস নং ৯৯২৮; শুআবুল ঈমান, বাইহাক্বী, হাদীস নং ২৩৯৫)
২। তাসবীহে ফাতেমী পড়া। অর্থাৎ ৩৩ বার সুবহানাল্লাহ, ৩৩ বার আলহামদু লিল্লাহ এবং ৩৪ বার আল্লাহু আকবার পড়া। (সুনানে নাসায়ী, হাদীস নং ১৩৪৮; মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং ২১৪১১)
অন্য এক রেওয়ায়েত অনুযায়ী যে ব্যক্তি পাঁচ ওয়াক্ত নামাযের পর ৩৩ বার সুবহানল্লাহ, ৩৩ বার আলহামদু লিল্লাহ এবং ৩৪ বার আল্লাহু আকবার পড়ে নিম্নোক্ত দুআটি পড়বে আল্লাহ তাআলা তার গুনাহ সুমুদ্রের ফেনা পরিমান হলেও মাফ করে দিবেন। দুআটি এই-
لاَ إِلَهَ إِلاَّ اللَّهُ وَحْدَهُ لاَ شَرِيكَ لَهُ لَهُ الْمُلْكُ وَلَهُ الْحَمْدُ وَهُوَ عَلَى كُلِّ شَىْءٍ قَدِيرٌ
(সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ১৩৮০; সুনানে আবূ দাউদ, হাদীস নং ১৫০৬)
৩। একবার সূরা ফালাক্ব ও নাস পড়া। এর সাথে সূরা কাফিরূন ও ইখলাছ মিলিয়ে নেওয়া উত্তম। (সুনানে নাসায়ী, হাদীস নং ১৩৩৫; সহীহ ইবনে হিব্বান, হাদীস নং ২০০৪)
৪। ফজর ও মাগরিবে উপরোক্ত দুআগুলোর সাথে নিম্নোক্ত দুআ দুটি পড়বে-
ক। اللَّهُمَّ أَجِرْنِى مِنَ النَّارِ সাত বার পড়বে। (সুনানে আবূ দাউদ, হাদীস নং ৫০৮১; মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং ১৮০৫৪)
খ। أَعُوذُ بِاللَّهِ السَّمِيعِ الْعَلِيمِ مِنْ الشَّيْطَانِ الرَّجِيمِ তিনবার পড়ে বিসমিল্লাহ সহ সূরা হাশরের শেষ তিন আয়াত পড়া। (সুনানে তিরমিজী, হাদীস নং ২৯২২; মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং ২০৩৬)

 15 total views,  1 views today