১। বাম পা বিছিয়ে তার উপর বসা। ডান পা সোজা খাড়া করে রাখা। উভয় পায়ের আঙ্গুলগুলো যথাসম্ভব কিবলার দিকে মুড়িয়ে রাখা। (সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ১১৩৮; সুনানে আবূ দাউদ, হাদীস নং ৭৮৩; সুনানে নাসায়ী, হাদীস নং ১১৫৭)
২। রানের উপর হাঁটু বরাবর করে রাখা এবং দৃষ্টি উভয় হাঁটুর মাঝে রাখা। (সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ১৩৩৮; মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং ৫৪২; সুনানে নাসায়ী, হাদীস নং ১২৭৪)
৩। তাশাহ্হুদের মধ্যে আশহাদু বলার সময় ডান হাতের মধ্যমা ও বৃদ্ধাঙ্গুলি দ্বারা গোলাকার বৃত্ত বানানো এবং অনামিকা ও কনিষ্ঠাঙ্গুলি তালুর দিকে মুড়িয়ে রাখা। লা ইলাহা বলার সময় শাহাদাত আঙ্গুল সামান্য উচুঁ করে ইশারা করা। অতঃপর “ইল্লাল্লাহু” বলার সময় আঙ্গুলের মাথা কিছুটা ঝুকানো এবং বৈঠকের শেষে পর্যন্ত এ অবস্থায় রেখে দেওয়া। (সুনানে আবূ দাউদ, হাদীস নং ৯৫৮; সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং ১২৭৩)
৪। শেষ বৈঠকে আত্তাহিয়্যাতু পড়ার পর দুরূদ শরীফ পড়া। (সহীহুল বুখারী, হাদীস নং ১২৮৭; সুনানে নাসায়ী, হাদীস নং ১২৮৭)
৫। অতঃপর দুআয়ে মাছূরা পড়া। (সহীহুল বুখারী, হাদীস নং ৭০৪৪; সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ৭০৪৪)
৬। উভয় দিকে সালাম ফিরানো। (সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ১৩৪৩; সুনানে তিরমিজী, হাদীস নং ২৯৫)
৭। প্রথমে ডান দিকে সালাম ফিরানো অতঃপর বামদিকে। উভয় সালাম কিবলার দিক থেকে আরম্ভ করা এবং সালামের সময় নজর কাঁধের দিকে রাখা। {সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ১৩৪৩; সুনানে নাসায়ী, হাদীস নং ১৩২৩; আদ্দুররুল মুখতার ২/১৭৫ (যাকারিয়া)}
৮। ইমামের উভয় সালামে মুক্তাদী, ফেরেশতা ও নামাযী জিনদের প্রতি সালাম করার নিয়ত করা। (সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ৯৯৮; সুনানে নাসায়ী, হাদীস নং ১৩১৭; আদ্দুররুল মুখতার ২/২৪১-২৪২, যাকারিয়া)
৯। মুক্তাদীর জন্য উভয় সালামে ইমাম (যদি মুক্তাদী মাঝে থাকে, অন্যথায় ইমাম যে দিকে থাকবে সেদিকে সালাম ফিরানোর সময় ইমামের নিয়ত করা), অন্যান্য মুসল্লী, ফেরেশতা ও নামাযী জিনদের প্রতি সালাম প্রদানের নিয়ত করা। (সহীহ মুসলিম, হাদীস নং ৯৯৮; সহীহুল বুখারী, হাদীস নং ১২০২; সূনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং ৯২২; আদ্দুররুল মুখতার ২/২৪১-২৪৬)
১০। একাকী নামায আদায়কারীর শুধু ফেরেশতাগনের সালাম প্রদানের নিয়ত করা। (মুসান্নাফে আব্দুর রাজ্জাক, হাদীস নং ৩১৪০)
১১। ইমামের সালাম ফিরানোর সাথে সাথেই মুক্তাদীর সালাম ফিরানো। (সহীহুল বুখারী, হাদীস নং ৮৪০; সহীহ ইবনে খুযাইমা, হাদীস নং ১২০৯)
১২। সালাম দীর্ঘ না করা এবং দ্বিতীয় সালাম প্রথম সালাম অপেক্ষা নিম্ন আওয়াজে বলা। (সুনানে আবূ দাউদ, হাদীস নং ১০০৬; সুনানে তিরমিজী, হাদীস নং ২৯৭; মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা, হাদীস নং ৩০৫৭)
১৩। ইমামের দ্বিতীয় সালাম শেষ হলে মাসবূকের ছুটে যাওয়া নামায আদায়ের জন্য দাঁড়ানো। এক পাশে সালাম ফিরানোর পর দাঁড়াবে না। (মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবা, হাদীস নং ৪৫৬৪; মুসান্নাফে আব্দুর রাজ্জাক, হাদীস নং ৩১৫৬, ৩১৫৯)

 15 total views,  1 views today